দ্য গ্রিন ওয়াক ব্যুরো : দূষণ যেন এই শতাব্দীর ভূষণ | পৃথিবীর সবচেয়ে দূষিত শহরগুলির অনেকগুলিই ভারতবর্ষে | মাঝে মাঝে রাজধানী শহর দিল্লির দূষণের অবস্থা এমন হয়ে যায় যে স্কুল কলেজ ছুটি দিয়ে দিতে হয় | দূষণ রোধের যে চেষ্টা একেবারেই হচ্ছে না , বললে মিথ্যা বলে হবে ; তবে সফল হওয়াও সেই ভাবে যাচ্ছে না | এইরকম পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গেই এমন একটি গ্রাম পঞ্চায়েত আছে , যেখানে কোনো দূষণ একটুও হয় না | গ্রাম পঞ্চায়েতটি ঘোড়ামারা গ্রামপঞ্চায়েত |

ঘোড়ামারা গ্রামপঞ্চায়েত আসলে কলকাতা থেকে নব্বই কিমি দক্ষিণে হুগলী নদীর মোহনা থেকে চল্লিশ কিমি উত্তরে অবস্থিত একটি দ্বীপ | ঘোড়ামারা পঞ্চায়েতের আয়তন ৩.৮৭ বর্গ কিমি দ্য গ্রিন ওয়ালের সার্ভে টিমের সার্ভে অনুযায়ী | প্রায় হাজার পাঁচেক মানুষের বসতি দ্বীপটিতে যন্ত্রচালিত কোন যানবাহনই নেই | এমনকি গ্রাম বাংলায় প্রচলিত ইঞ্জিন ভ্যানও নেই এখানে | সকলেই পায়ে হেঁটে পা চালিত ভ্যানে যাতায়াত ও মালপত্র পরিবহন করেন | ঘোড়ামারা পঞ্চায়েতের প্রধান সঞ্জিব সাগর জানান, “আমাদের এখানে একশ শতাংশ বাড়ির লাইট ফ্যান টিভি সব কিছুই সৌরবিদ্যুৎ দিয়েই চলে | মোবাইলের চার্জও সৌর শক্তিতেই দেওয়া হয় | রাস্তাকে সন্ধ্যার পর আলোকিত করতে সৌর শক্তিকেই আমরা ব্যবহার করি |”

বাতাসে যেহেতু কোন দূষণ নেই , এখানে মানুষের রোগও অনেকটাই কম | হাসপাতালে কালেভদ্রে যেতে হয় | সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েতে দ্য গ্রিন ওয়াকের টিম সার্ভে করে দেখে ওবেসিটি , কোলেস্টরল বৃদ্ধি , উচ্চ রক্তচাপের মতো দূষণ সভ্যতার সমস্যাগুলি এখানে প্রায় শূন্য | ঘোড়ামারা দ্বীপের বাসিন্দা কানাইলাল গুছাইত জানান, “যতক্ষণ ঘোড়ামারা দ্বীপে থাকি ভালো থাকি , কাকদ্বীপ বা কলকাতার দিকে গেলে , ফিরে এসে অসুস্থ হয়ে পড়ি | কলকারখানা গাড়ির ধোঁয়া সহ্য করতে পারি না |” আন্দামানের সেন্টিনেলিদের সাথেও এরকম ঘটনার কথা শোনা গিয়েছিল একসময় | কয়েকজন সেন্টিনেলিকে ভারতের মূল ভূখন্ডে আনা হয়েছিল , কিন্তু তারা বেশিদিন এখানে বাঁচতে পারেনি |

ঘোড়ামারার উত্তম প্রধান বলেন, “আমরা শাকসব্জি নিজেদের বাড়িতে ফলিয়েই খাই | চাষে আমরা রাসায়নিক সারও ব্যবহার করি না , সবটাই জৈব চাষ |” দ্বীপে প্লাস্টিকের ব্যবহারও খুব সীমিত | সব মিলিয়ে ঘোড়ামারা গ্রাম পঞ্চায়েত একেবারেই আলাদা | রাজ্য কেন সমগ্র পৃথিবীতে আর এমন একটি গ্রাম খুঁজে পাওয়া যাবে না | যাকে দূষণমুক্ত করার চেষ্টা কোনদিনই করতে হয়নি , কারন ঘোড়ামারার বাসিন্দারা এমন একটি উন্নয়ন বেছে নিয়েছেন যা পৃথিবীকে এক ফোঁটাও বিষ বাষ্প কোনদিনই উপহার দেয় নি |

Advertisements