দ্য গ্রিন ওয়াক ব্যুরো: বছর ছাব্বিশের জেন গুডাল গতকাল ৩রা এপ্রিল, ২০১৯ তে পঁচাশি বছরে পা দিলেন। হিসেবটা শুনতে যতই অদ্ভুত লাগুক না কেন কথাটা সত্যি। শেখার ইচ্ছা চলে গেলে মানুষ বুড়ো হয়ে যায়। কিন্তু বয়স যত বাড়ে জেনের আকাশ তত রঙিন হয়। জেনরা বুড়ি হন না। ছোট্ট জেন জঙ্গলের স্বপ্ন দেখেন। কলেজে পড়ার উপায় নেই। চাকরি করতে যেতে হয়। পয়সা বাঁচান, আফ্রিকা যেতে হবে।

১৯৫৭ সাল। কুড়িয়ে বাড়িয়ে যা পাওয়া গেল যথেষ্ট। কেনিয়ায় বন্ধুর বাড়ি। নাইরোবিতে এসে দেখা হল বিশ্ববিখ্যাত নৃতাত্ত্বিক লুই লিকির সঙ্গে। লিকি তখন আদিম মানুষ নিয়ে গবেষণার কাজে দিনরাত এক করে খাটছেন। জেনকে দেখে কেমন একটা ভরসা পেলেন। লিকির অনুমতি নিয়ে জেন চললেন তানজানিয়ার গম্বে স্ট্রিমের জঙ্গলে। সেখানে বনের ভেতর শিম্পাঞ্জিরা থাকে। এরপরে পাঁচ বছর ধরে একটু একটু করে জেন মিশতে থাকলেন ওদের দলে। প্রথম কয়মাস দূর থেকে দেখেই শান্ত থাকতে হল। ধীরে ধীরে অত্যন্ত মৃদু পায়ে এগোতে থাকলেন জেন। অদ্যম কৌতূহলে, প্রেমে, সততায় জেনের মন জুড়ে প্রশ্নের পর প্রশ্ন। উত্তর আসতে থাকে আস্তে আস্তে।

এতদিন সবাই ভাবতেন শিম্পাঞ্জিরা নিরামিষভোজী। জেন একদিন খেয়াল করলেন ওরা মাংস খেতেও পছন্দ করে। বিজ্ঞানের বইতে ভুল লেখা আছে। নতুন আবিষ্কার। উৎফুল্ল মন। রেশ কাটতে না কাটতেই দেখেন শিম্পাঞ্জিরাও মানুষের মতো হাতিয়ার ব্যবহার করতে পারে। ডেভিড গ্রেবিয়ারড দলের সবথেকে সুপুরুষ সদস্য। অবশ্যই জেনের দেওয়া নাম। জেন একদিন তাকে একটা ডালকে অস্ত্র বানিয়ে উইপোকার ঢিপি থেকে উইপোকা শিকার করতে দেখলেন। তার মানে মানুষই একমাত্র প্রাণী নয় যারা হাতিয়ারের ব্যবহার শিখেছে। তড়িঘড়ি জেন তার করলেন লিকিকে। লিকি জবাব দিলেন মানুষ আর হাতিয়ারকে পুনরায় বিশ্লেষণ করা দরকার। নয়তো শিম্পাঞ্জিদেরও মনুষ্যগোত্রভুক্ত করা উচিত। চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে দিলেন জেন বিজ্ঞানীমহলে।

এরপরের কথা ইতিহাস। জেন প্রথাগত কলেজ পাশ না করেও ডিগ্রি পেলেন, তাঁকে নিয়ে তৈরী হল ছবি। জেন তৈরী করলেন জেন গুডাল ইনস্টিটিউট ও রুটস অ্যান্ড শুটস প্রোগ্রাম, যেখানে পরিবেশ ও সভ্যতার প্রশ্নে এক হতে পারেন যেকোনো বয়সের তরুণ তরুণী।
এখনও বছরে তিনশ দিন পৃথিবীর নানা প্রান্তে ঘুরে বেড়ান জেন ভাষাহীনদের ভাষা দেবেন বলে।
স্বপ্ন দেখেন মাথার ওপর একটা ক্যালিফোর্নিয়া কনডোর উড়ন্ত। অতিকায় পাখি। বছর কয়েক আগেও লুপ্তপ্রায় পাখিদের মধ্যে গণ্য হত। শেষ বারোটি পাখিদের ধরে কিছু জীববিজ্ঞানীদের চেষ্টায় ক্যাপটিভ ব্রিডিঙের মাধ্যমে তাদের সংখ্যা এখন তিনশতে এসে দাঁড়িয়েছে। জেন গুডালের কাছে ক্যালিফোর্নিয়া কনডোরের বিশাল পালক আশার প্রতীক। শুভ জন্মদিন জেন গুডাল |

Advertisements