-তুহিন শুভ্র মন্ডল

আজ বারুণী মেলা।এইক্ষেত্রে নদীকে গঙ্গা মা হিসাবে কল্পনা করা পুজো করা হয় ও স্নান করে পূণ্যার্থীরা। কিন্ত আজ সকাল থেকেই এই প্রশ্ন ঘুরে বেরিয়েছে মানুষের মধ্যে – “প্রতিবার স্নান করি। এবারও করতে চাই। কিন্ত জল কোথায়?”

সত্যিই বিষয়টা ভাবায়। দক্ষিণ দিনাজপুরের অধিকাংশ নদীতে এখন জল প্রায় নেই। গঙ্গারামপুর দিয়ে প্রবাহিত পুনর্ভবা নদী এখন শুকনো খটখটে। এতটাই যে বারুণীর স্নানের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করেছে গঙ্গারামপুর পৌরসভা। তারা নদী বক্ষের একটি নির্দিষ্ট জায়গা খনন করে ট্যাঙ্ক করে জল ঢেলেছে যাতে পূণ্যার্থীরা স্নান করতে পারে। আত্রেয়ী নদীতে জল আছে কিন্ত কোথাও পায়ের পাতা ডোবেনা, কোথাও বা হাঁটু ডোবেনা এমন জল।

জনৈক স্থানীয় তৃপ্তি কণা মন্ডল প্রতিবার স্নান করতে যান কিন্তু এবার যেতে পারেননি। তিনি দুঃখপ্রকাশ করেছেন “কয়েক বছর আগেও সবাই মিলে ডুব দিয়ে স্নান করতাম।” অন্যান্য যারা গিয়েছেন তারাও জল খুঁজে পাননি। একটাই প্রশ্ন ঘুরে বেরিয়েছে “জল কোথায় ?” অথচ এতটাই কি করুণ পরিণতি হওয়া উচিত ছিল আমাদের নদীর?

কলেজ পড়ুয়া পরিবেশ বন্ধু ঋক গুহ জানায় পুনর্ভবা নদীর অবস্থা এত খারাপ যে পৌরসভা থেকে নদীবক্ষে জলের ব্যবস্থা করেছে। তাই পরিবেশপ্রেমী সংস্থা “দিশারী সংকল্পের” পক্ষ থেকে নদীতে স্নান করতে নিজেদের বাড়ি থেকে ঘটিতে করে জল আনুন এই বলে সচেতনতামূলক প্রচার করছে। ভোটের শেষে নদীকে বাঁচাতে তারা আরও বিভিন্ন কর্মসূচীর কথাও জানিয়েছে।

Advertisements